বিজ্ঞান
Now Reading
বিজ্ঞানীর মোবাইল বিলের কারনে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফাঁকা
0

বিজ্ঞানীর মোবাইল বিলের কারনে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফাঁকা

by Arif Ur Rahmanঅক্টোবর ৩১, ২০১৯

ঈগল পাখি নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফাঁকা করেছেন এক রাশিয়ান বিজ্ঞানী।গবেষণা করতে গিয়ে মোবাইল বিল দিতে গিয়েই তার এই অবস্থা হয়েছে। তবে পরে মোবাইল অপারেটররা এগিয়ে আসলে কিছুটা হলেও সেই শঙ্কা থেকে মুক্ত হন তিনি।ওই বিজ্ঞানী তার গবেষণায় মোট ১৩টি ঈগল পাখির পায়ে তাদের গতিপথ দেখার জন্য ‘ট্র্যাকিং ডিভাইস’ লাগান। সেই ডিভাইস তার মোবাইল ফোনে টেক্সট ম্যাসেজ পাঠিয়ে তাদের গতিপথের খবরাখবর দেয়।গবেষণার সময় রাশিয়া ও কাজাখস্থান থেকে পাখিগুলোর গতিপথের উপর নজর রাখা শুরু করেন তিনি।

কিন্তু বিপত্তি বাধে একটি নারী ঈগল পাখিকে নিয়ে। সেই ঈগল শুধু রাশিয়া ও কাজাখস্থানের সীমান্ত পর্যন্ত উড়েই থেমে থাকেনি। সে চলে গেছে আফগানিস্তান ও ইরান পর্যন্ত। আর তখনই বাড়তে থাকে তার মোবাইল ফোনের বিল।যেহেতু দেশের সীমানা পার হলে মোবাইল ফোনে রোমিং চার্জ ধরা হয়। তাতে করে দেখা গেছে  যেখানে বিজ্ঞানীর কাজাখস্থানে এসএমএস খরচ হিসেবে দিতে হয় ২ থেকে ১৫ রুবল পর্যন্ত সেখানে ঈগল যখন ইরানে যায় তখন সেখান থেকে রোমিং চার্জসহ তা দাঁড়ায় ৪৯ রুবলে।‘ওয়াইল্ড অ্যানিমল রিহ্যাবিলেটশন সেন্টার’ নামের স্বেচ্ছাসেবক সংস্থার এই বিজ্ঞানী ও তার সঙ্গীরা আর কোনো উপায় না দেখে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে অর্থ সহায়তা চেয়ে আবেদন করেন।

সেখান থেকে এক লাখ রুবল পর্যন্ত অর্থ উঠেছে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে লোকজন এই ক্যাম্পেইনের নাম দিয়েছে ‘টপ আপ দ্যা ঈগল মোবাইল’। পরে তাদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছে ফোন কোম্পানি ‘মেগাফোন’।তারা প্রথমত যে বিল তৈরি হয়েছে তা মওকুফ করার ঘোষণা দিয়েছে এবং বিজ্ঞানীদের প্রকল্পের ভবিষ্যৎ বিল কম খরচে দেয়ার ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে।‘স্টেপ’ প্রজাতির এই ঈগল পাখি মূলত রাশিয়া ও মধ্য এশিয়াতে পাওয়া যায়। তবে বিদ্যুতের তারের কারণে তারা ঝুঁকির তালিকায় রয়েছে।এই ঈগল সাইবেরিয়া ও কাজাখস্থানে বংশ বিস্তার করে এবং শীতের মৌসুমে দক্ষিণ এশিয়ার দিকে উড়ে আসে।

What's your reaction?
Love It
0%
Interested
0%
What?
0%
Hate It
0%
Sad
0%
About The Author
Arif Ur Rahman